ঢাকা, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, , ২ রমজান ১৪৪২
Reg:C-125478/2015

লকডাউনে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সীমা বাড়ল


প্রকাশ: ৫ এপ্রিল, ২০২১ ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন


লকডাউনে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সীমা বাড়ল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে ডিজিটাল আর্থিক সেবা সার্বক্ষণিক চালু রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এটিএম, ইন্টারনেট ব্যাংকিং, এজেন্ট ব্যাংকিং, এমএফএসসহ সব মাধ্যমে গ্রাহকরা যেন সার্বক্ষণিক সেবা পান সে ব্যবস্থা করতে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে এমএফএসের ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি লেনদেনের সীমা বাড়িয়ে ২ লাখ টাকা করা হয়েছে। আর নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ওষুধ বিক্রয়কারী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে ব্যবসায়িক লেনদেনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে সব ব্যাংক ও মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (এমএফএস) প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টার, এটিএম, এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের এজেন্ট পয়েন্ট এবং মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেসের (এমএফএস) এজেন্ট পয়েন্টে নগদ অর্থ ও ই-মানি সরবরাহ নিরবিচ্ছিন্নভাবে নিশ্চিত করতে হবে। এসব লেনদেনের জীবাণুমুক্ত করা ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখার ব্যবস্থা এবং স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ও ওষুধ বিক্রয়কারী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাব, এমএফএস হিসাব, এজেন্ট ব্যাংকিং হিসাব ও পিএসপি হিসাব ব্যবসায়িক লেনদেনের জন্য ব্যবহার করতে পারবে। এমএফএসের ব্যক্তি হতে ব্যক্তি লেনদেনের সর্বোচ্চ মাসিক সীমা ৭৫ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ২ লাখ টাকা করা হয়েছে। ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি লেনদেনের ক্ষেত্রে ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত চার্জ নেওয়া যাবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের তারিখ সরকার ঘোষিত কার্যাবলী ও চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপকালীন সময়সীমার মধ্যে নির্ধারিত থাকলে ওই বিল পরিশোধের তারিখ নিষেধাজ্ঞা স্থগিত হওয়ার পরবর্তী ৫ কর্মদিবস পর্যন্ত বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এসময়ের জন্য কোনো লেট পেমেন্ট ফি নেওয়া যাবে না। শুধুমাত্র মূল অঙ্কের ওপর সুদ নেওয়া যাবে। এছাড়া এনএফসি সুবিধাযুক্ত কার্ডের লেনদেন সীমা ৩ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করা হয়েছে।


   আরও সংবাদ