ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, , ৬ জ্বিলক্বদ ১৪৪২
Reg:C-125478/2015

ঐতিহ্যবাহী নবগঙ্গা নদীটি লাখ টাকার মহা খনন প্রকল্প


প্রকাশ: ৯ মে, ২০২১ ১০:০২ পূর্বাহ্ন | দেখা হয়েছে ২২৯ বার


ঐতিহ্যবাহী নবগঙ্গা নদীটি লাখ টাকার মহা খনন প্রকল্প

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি- দুই দাগে ৪০ একর ৬৬ শতক জমি নবগঙ্গা নদীর নামে রেকর্ড। ৬২ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত নদীর নামেই বহাল আছে রেকর্ড। অথচ জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে জলমহল দেখিয়ে নদী ইজারা দেওয়া হয়েছে। ইজারা প্রদানের সময় শর্ত প্রদান করা হয় নৌ চলাচল বাধাগ্রস্থ হয় এমন বাঁধ না দিতে, নদী খনন না করতে। কিন্তু সে শর্তও মানেনি ইজারা গ্রহীতারা। নদীর মধ্যে বড় বড় পুকুর খনন করে আস্ত নদী গিলে খেতে বসেছে।

অন্যদিকে মৎস্য বিভাগের নথিতে ইতিহাস খ্যাত নবগঙ্গা নদীটি বাওড় দেখিয়ে খননের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৩১ লাখ টাকা। বলা যায় নদীর মধ্যেই বাস্তাবয়ন হচ্ছে এক মহা প্রকল্প। এ নিয়ে এলাকার কৃষকদের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। কৃষকরা নদীতে পাট জাগ দিতে পারে না। জেলেরা ধরতে পারে না মাছ। ঘটনাটি ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহের মাঝ দিয়ে আসা নবগঙ্গা নদী বদরগঞ্জ হয়ে হরিণাকুন্ডুর রিশখালী, সোনাতনপুর, ভুইয়াপাড়া ও ভেড়াখালীর মাঝ দিয়ে ঝিনাইদহে এসে মিশেছে। হরিণাকুন্ডুর ভুইয়াপাড়া মৌজার ৫২৪ নং দাগে ১১ একর ও সোনাতনপুর মৌজার ৩০৭৫, ৫০১৬ নং দাগে ২৯ একর ৬৪ শতক নদীর জমি ইজারা দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

নদীর নামে রেকর্ড থাকা জমি আবার ঝিনাইদহ মৎস্য বিভাগ পুরঃ খননের জন্য ৩১ লাখ টাকা বরাদ্দও করেছে। সেই কাজও এখন চলমান। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, ইজারা প্রদানের সময় ১৬ নং শর্তে উল্লেখ ছিল ইজারা গ্রহীতা ইজারা দাতার অনুমোদন ব্যতিত আড়াআড়ি ভাবে বাঁধ বা বেড়া এমনকি কোন কাঠামো তৈরী করতে পারবে না। কিন্তু নদীর মধ্যে এখন বড় বড় পুকুর ও বাঁধ। ফলে নৌকা বা ডিঙ্গি চলাচল করতে পারছে না।

৫ নং শর্তে উল্লেখ আছে নৌ চলাচল বাধাগ্রস্থ হয় এমন কাজ ইজারা গ্রহীতা করতে পারবে না। জনস্বাস্থ্য ও পানির দুষন ঘটে এমন কাজও করা যাবে না। কিন্তু শর্ত ভঙ্গ করে সমিতির সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক ও সাধারণ সম্পাদক এলেম মন্ডল নদীর বুকে নিজেদের ভাগ্য বদলের এক মহাযজ্ঞ শুরু করেছেন। স্থানীয় দৌলতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী বুড়ো অভিযোগ করেন, ২০/২২ বছর ধরে নবগঙ্গা নদীটি বেদখল। নদীর বিভিন্ন অংশে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে। জাল কাগজপত্র তৈরী করে ভুয়া সমবায় সমিতি গঠন করে নদী ইজারা নেওয়া হয়েছে।

ফলে এলাকার কৃষকরা নদীতে পাট জাগ দিতে পারে না। ফসলের জমিতে সেচ দেওয়া বন্ধ রয়েছে। হতদরিদ্ররা উন্মুক্ত জলাশয় থেকে মাছ ধরে খেতে পারে না। নদীর অসংখ্য জায়গায় বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছে। তিনি নদীর বাধ উচ্ছেদ করে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার দাবী জানান। ঝিনাইদহ নদী রক্ষা পরিষদের নেতা ও পরিবেশবিদ মাসুদ আহমেদ সনজু জানান, নদীর প্রবাহ বন্ধ করে মাছ চাষ কাম্য হতে পারে না। এটা অন্যায় ও পরিবেশের জন্য বিপর্যয় ডেকে আনবে। ভুইয়াপাড়া ও সোনাতন গ্রামের মানুষ অভিযোগ করেন, গত ১১ বছর ধরে সমবায় সমিতি গঠন করে নদীটি দখলে রাখা হরেয়ছে।

বর্তমানে নদীটি জনতা মৎস্যজীবী সমিতির দখলে রয়েছে। গ্রামবাসি ভাষ্যমতে রিশখালী, ভুইয়াপাড়া, সোনাতনপুর ও ভেড়াখালী এলাকায় নদীর তিন কিলোমিটার অংশে বাঁধ দিয়ে এই মাছ চাষ করার ফলে কয়েক বছর বর্ষা মৌসুমে অতিরিক্ত পানির কারণে অন্তত ৫০টি ঘরবাড়ি ভাঙনের কবলে পড়েছে। আর নদীর দু'পাড়ে জলাবদ্ধতায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শত শত একর ফসলী জমি। নদীর ওই এলাকার ইজারাদার সোনাতনপুর জনতা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, আমরা ২০১৯ সালের ১৯ জুলাই বাঁওড়টি (নবগঙ্গা নদী) জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বছরে ৬ লাখ টাকায় ইজারা নিয়েছি।

এটা একটা লুপ কাটিং। আগে নদীর অংশ ছিল। কিন্তু এখন নদীটির বাঁকা অংশ কেটে সোজা করে দেওয়ায় ইজারাকৃত অংশটি লুপকাটিংয়ে পরিণত হয়েছে। হরিণাকুন্ডু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা নাফিস সুলতানা বলেন, নদী দখলমুক্ত করার বিষয়ে একটি আবেদন পেয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান বলেন, ২০১১ সাল থেকে এটি ইজারা দেওয়া হচ্ছে।

বর্তমানে এটি তিন বছরের জন্য ওই এলাকার একটি মৎস্যজীবী সমিতিকে ইজারা দেওয়া রয়েছে। চলতি বছরের শেষ দিকে ইজারার মেয়াদ শেষ হলে নদীটি আর ইজারা দেওয়া হবে না বলে আশ্বস্ত করেন।

 


   আরও সংবাদ