ঢাকা, বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, , ২৫ জ্বিলহজ্ব ১৪৪২
Reg:C-125478/2015

অভিযোগ উঠেছে কেএসআরএম স্টিল প্লান্টের বিরুদ্ধে


প্রকাশ: ১৮ জুলাই, ২০২১ ১১:০৬ পূর্বাহ্ন | দেখা হয়েছে ২২৩ বার


অভিযোগ উঠেছে কেএসআরএম স্টিল প্লান্টের বিরুদ্ধে


অর্থনীতি ডেস্ক:- মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বাবদ ২৩১ কোটি ১৬ লাখ টাকা ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে কেএসআরএম স্টিল প্লান্টের বিরুদ্ধে। তদন্তের ভিত্তিতে এ ফাঁকি উদ্ঘাটন হয়েছে বলে দাবি করেছে চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট। গতকাল কাস্টমসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে কাস্টমস জানায়, সরবরাহের বিপরীতে অপরিশোধিত ৮৫ কোটি ২৯ লাখ ১৫ হাজার ৬৯৫ টাকা ও উৎসে মূসক বাবদ অপরিশোধিত ১৪৫ কোটি ৮৭ লাখ ৬৮ হাজার ৭৮৪ টাকা ফাঁকির তথ্য তদন্তে পাওয়া গেছে, সব মিলিয়ে যার পরিমাণ ২৩১ কোটি ১৬ লাখ ৮৪ হাজার টাকা। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে এরই মধ্যে মূসক আইনে মামলা করা হয়েছে ও পরবর্তী কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন জানান, নিবারক দলের মাধ্যমে তল্লাশি ও তদন্তে বিশাল ফাঁকি বের হয়ে এসেছে। প্রতিষ্ঠানকে শিগগিরই কারণ দর্শানোর নোটিস জারি করা হবে। তারা তাদের বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পাবেন। ফাঁকি দেয়া অর্থ তাদের সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হবে।

এদিকে কেএসআরএম কর্তৃপক্ষ গতকাল এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গণমাধ্যমে দেয়া কাস্টমসের বক্তব্যের বিষয়ে কেএসআরএম অবগত নয়। কারণ ভ্যাট কমিশনারেট এরই মধ্যে কিছু ডকুমেন্ট জব্দ করলেও আমাদের কাছ থেকে কোনো বক্তব্য নেয়া হয়নি। তাছাড়া বিষয়টি নিয়ে আমাদেরও কিছু জানানো হয়নি লিখিত বা মৌখিকভাবে। তা না করে বিবৃতি দিয়ে কেএসআরএমকে হেয় করা হচ্ছে। বিষয়টি বন্ধের দিন গণমাধ্যমে প্রেস রিলিজ আকারে পাঠানো কোনোভাবেই যৌক্তিক হতে পারে না। 

এতে বিষয়ের সত্যতা যাচাই ও অবগত না হয়ে আমাদের পক্ষে কোনো ধরনের বক্তব্য দেয়ারও সুযোগ নেই। এটি মূলত একপক্ষীয় সিদ্ধান্ত। আমাদের সঙ্গে এর আগে কোনো ধরনের আলাপ-আলোচনা হয়নি সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে। অথচ এ সিদ্ধান্তের কারণে আমাদের ব্র্যান্ড ইমেজ ক্ষতিগ্রস্ত হবে, যা অপ্রত্যাশিত।


   আরও সংবাদ