ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, , ১৩ সফর ১৪৪৩
Reg:C-125478/2015

স্বাস্থ্যবিধি তোয়াক্কা না করে কোতোয়ালী বাগ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু


প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৬:৪৩ অপরাহ্ন | দেখা হয়েছে ২০৪ বার


স্বাস্থ্যবিধি তোয়াক্কা না করে কোতোয়ালী বাগ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরু

জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার ধরন্জী ইউনিয়নের আওতাভুক্ত কোতোয়ালী বাগ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে  ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং তারিখে পুনরায় ক্লাস শুরু হয়।

গত বছর মার্চে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর,  করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে একযোগে  বাংলাদেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধাপে ধাপে ছুটি বৃদ্ধি করে, প্রায় দেড় বছর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশে নতুন রোগী শনাক্তের হার হ্রাস পাওয়াই এবং শিক্ষার মান ধরে রাখার জন্য সরকার শর্তসাপেক্ষে আজ থেকে পুনরায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার নির্দেশনা দেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ও উচ্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যেক উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারদ্বয় কে জানানো হয়েছে যে প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত ছাত্র-ছাত্রী শিক্ষক ও স্টাফদের কে মাস্ক পরিধান করতে হবে, তাপমাত্রা পরিমাপ করতে হবে, ক্লাসরুমে নিম্নে ৩ ফুট দূরত্বে শিক্ষার্থীদের কে বসাতে হবে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার এর ব্যবস্থা থাকতে হবে আইসোলেশন রুমের ব্যবস্থা নিতে হবে।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের এমন প্রচেষ্টা এবং শিশুদেরকে নিরাপদে রাখতে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদেরকে বলার পরও কোতোয়ালী বাগ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তা গ্রহণ করেননি।

 স্কুলে উপস্থিত বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের মুখে কোন ধরনের মাক্স ছিল না শুধু তাই নয় তাপমাত্রা পরিমাপের কথা থাকলেও শিক্ষার্থী বা শিক্ষকদের জন্য এমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। সকল শিক্ষার্থীদের কে নিয়ে এক জায়গায় জড়ো করে প্রধান শিক্ষক পরামর্শমূলক বক্তব্য দিচ্ছেন যা সম্পূর্ণটা স্বাস্থ্য বিধির লংঘন।

আমি যখন স্কুলে গিয়ে উপস্থিত হয় এবং ক্যামেরা চালু করি তখন প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী সাহেব অন্যান্য শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের কে বলছেন ছবি উঠানো হবে আপনারা মাক্স পরিধান করুন।

কোতোয়ালী বাগ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলীকে স্বাস্থ্য বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে জানতে চাইলে, তিনি বলেন গ্রামগঞ্জে এমন সমস্যা নেই, এগুলোর শহরেই বেশি হচ্ছে, আর তাপমাত্রা পরিমাপের মেশিন আমরা চায়না থেকে নিয়ে আসছি শিক্ষার্থীদের কে বলা হয়েছে কারো যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে আগের থেকে জানাতে।

কোমলমতি বাচ্চাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে যখন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কে জানানো হয়, তখন তিনি বলেন আমি এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিব।
 


   আরও সংবাদ